www.land.gov bd আর এস খতিয়ান বের করার নিয়ম ২০২৪

আমরা অনেকেই ভূমি মন্ত্রণালয়ে ওয়েবসাইট থেকে আর এস খতিয়ান এর তথ্য খুঁজে বের করতে চাই। কিন্তু কিভাবে আরএস খতিয়ান এর তথ্য বের করবেন অনেকেই জানেন না। তাদের জন্য আজকের এই পোস্টে ভূমি মন্ত্রণালয় অফিসিয়াল ওয়েবসাইট …

www.land.gov bd আর এস খতিয়ান

আমরা অনেকেই ভূমি মন্ত্রণালয়ে ওয়েবসাইট থেকে আর এস খতিয়ান এর তথ্য খুঁজে বের করতে চাই। কিন্তু কিভাবে আরএস খতিয়ান এর তথ্য বের করবেন অনেকেই জানেন না। তাদের জন্য আজকের এই পোস্টে ভূমি মন্ত্রণালয় অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে আরএস খতিয়ান দিয়ে যেকোনো তথ্য বের করার বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হয়েছে। www.land.gov.bd ওয়েবসাইটে আলাদাভাবে “আর এস খতিয়ান” নামে কোন সেকশন নেই। তবে, সেখানে গিয়েও আপনি গ্রামীণ বন্দোবস্ত রেজিস্টার সম্পর্কে তথ্য দেখতে পারবেন।

আর এস খতিয়ান

বর্তমানে কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে যেগুলো অনুসরণ করে আপনি আরএস খতিয়ান খুঁজে বের করতে পারবেন। আপনাদের মধ্যে অনেকে আছেন যারা নিজের খতিয়ান নাম্বার জানেন। আবার অন্যদিকে অনেকেই আছেন খতিয়ান নাম্বার জানেন না কিন্তু দাগ নাম্বার জানেন। আপনার জমির যে কোন একটি তথ্য জানলে আপনি খুব সহজে আর এস খতিয়ান খুঁজে বের করতে পারবেন। অনেক বছর ধরে খতিয়ানের বিভিন্ন ধরন আমাদের মাঝে প্রকাশিত হয়েছে। যেমন- আরএস, সিএস, এসএ, বিআরএস, বিএস সহ আরো কয়েকটি। অনেকের জমির দলিল অনেক পুরনো হওয়ায় তাদের খতিয়ানের ধরনের পরিবর্তন ঘটেনি। তাই আপনার বাড়ির খতিয়ান যদি আরএস খতিয়ান হয়ে থাকে। তাহলে দেখে নিন কিভাবে বিস্তারিত তথ্য বের করবেন।

www.land.gov bd আর এস খতিয়ান

এখানে কিভাবে করবেন তা দেখুন:

  • “মৌজা নির্বাচন করুন” সেকশনে যান: এই অপশনটি আপনি হোম পেজের “নামজারি সেবা” অধীনে পাবেন।
  • প্রয়োজনীয় তথ্য দিন: জমি যে বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং মৌজায় অবস্থিত, সে তথ্য নির্বাচন করুন।
  • রেকর্ডের ধরন বাছাই করুন: রেকর্ডের ধরন হিসেবে “সার্ভে খতিয়ান অনুসন্ধান” নির্বাচন করুন।
  • খতিয়ান নম্বর দিন: যদি আপনি নির্দিষ্ট খতিয়ান নম্বর জানেন। তাহলে নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে এটি লিখুন।
  • “খুজুন” (Search) এ ক্লিক করুন: সব তথ্য লিখে ফেলার পর, তথ্য দেখার জন্য সার্চ বোতামে ক্লিক করুন।

যদি আপনি খতিয়ান নম্বর না জানেন। তাহলেও আপনি অন্যান্য তথ্য এবং পৃষ্ঠার ফিল্টার ব্যবহার করে অনুসন্ধান করতে পারেন। “ম্যাপ দেখুন” অপশনটি ব্যবহার করে প্লটের অবস্থান ম্যাপে দেখতে পারেন। আশা করি এই সংশোধিত ব্যাখ্যাটি আরো সঠিক এবং সহায়ক। অন্য কোন প্রশ্ন থাকলে দয়া করে জানান!

land gov bd

বর্তমানে সার্ভে খতিয়ান, নামজারি খতিয়ান রয়েছে। মৌজা ম্যাপ থেকে সার্ভে টাইপ আর এস সিলেক্ট করে মৌজা নির্বাচন করে দাগ বা খতিয়ান নাম্বার উল্লেখ করলে বিস্তারিত তথ্য দেখতে পারবেন। এখানে কয়েকটি উপায়ে আর এস খতিয়ান দেখার বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হয়েছে।

মৌজা নির্বাচন করে আর এস খতিয়ান অনুসন্ধান

  • “নামজারি সেবা” অংশে “মৌজা নির্বাচন করুন” সেকশনে যান।
  • আপনার জমি কোন বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং মৌজায় অবস্থিত, সে তথ্য নির্বাচন করুন।
  • রেকর্ডের ধরন হিসেবে “খতিয়ান” নির্বাচন করুন।
  • যদি খতিয়ান নম্বর জানেন, তাহলে লিখুন।
  • “খুঁজুন” বাটনে ক্লিক করুন।
  • ফলাফল পৃষ্ঠায় আপনি খতিয়ানের তথ্য দেখতে পাবেন।

খতিয়ান নম্বর দিয়ে আর এস খতিয়ান অনুসন্ধান

  • “নাগরিক কর্ণার” অংশে “ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড” অধীনে “ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড সার্চ” অপশনে যান।
  • “খতিয়ান নম্বর দিয়ে খুঁজুন” অপশন নির্বাচন করুন।
  • বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং মৌজা নির্বাচন করুন।
  • খতিয়ান নম্বর লিখুন।
  • “খুঁজুন” বাটনে ক্লিক করুন।
  • ফলাফল পৃষ্ঠায় আপনি খতিয়ানের তথ্য দেখতে পাবেন।

ম্যাপ দেখে আর এস খতিয়ান অনুসন্ধান

  • “নাগরিক কর্ণার” অংশে “ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড” অধীনে “মৌজা ম্যাপ” অপশনে যান।
  • বিভাগ, জেলা, উপজেলা, সার্ভে টাইপ এবং মৌজা নির্বাচন করুন।
  • ম্যাপে জমি খুঁজে নিন।
  • ম্যাপের জমির উপর ক্লিক করলে প্রাসঙ্গিক খতিয়ানের তথ্য দেখতে পাবেন।

নিজের জমির আর এস খতিয়ান তথ্য দেখতে এখানে দেখুন

www.land.gov bd আর এস খতিয়ান Download

১০০ টাকার বিনিময়ে আপনি ঘরে বসে খুব সহজেই নিজের জমির খতিয়ান পেয়ে যাবেন। তার জন্য আপনাকে ভূমি মন্ত্রণালয়ে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে খতিয়ান আবেদন করতে হবে। অন্যদিকে আপনি যদি নিজের জমির আংশিক তথ্য জানতে চান। তাহলে স্মার্ট ভূমি রেকর্ড ও ম্যাপ অপশন থেকে সার্ভে খতিয়ান অপশনে বিস্তারিত তথ্য দিয়ে সকল তথ্য জানতে পারবেন। কিন্তু আপনি যদি নিজের জমির খতিয়ান হারিয়ে ফেলেন বা অনলাইন কপি বা সার্টিফাইড কপি প্রয়োজন মনে করেন। তাহলে খতিয়ান আবেদন ফরম পূরণ করে জমা দিলে। ৩ থেকে ৭ দিনের ভিতরে নতুন একটি খতিয়ান হাতে পেয়ে যাবেন। তবে অবশ্যই নিজের জেলা, উপজেলা, মৌজা ও খতিয়ান নাম্বার সঠিকভাবে সিলেক্ট করবেন। আবেদন করার সময় আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার, জন্ম তারিখ, নাম ও মোবাইল নাম্বার প্রদান করতে হবে। পরবর্তীতে অংশে ঠিকানা দিয়ে অনলাইন মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ১০০ টাকা পেমেন্ট করতে হবে।

খতিয়ান খুঁজুন ও আবেদন করুন

আপনার জন্য উপযুক্ত পদ্ধতিটি বেছে নিন এবং খতিয়ানের তথ্য দেখুন। যদি কোনো সমস্যা হয় বা আরও সাহায্য দরকার হয়। তাহলে ভূমি মন্ত্রণালয়ের হেল্পলাইনে (১৬১২২) যোগাযোগ করুন। আশা করি এবারে আরো স্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে পেরেছি।

Leave a Comment